Howrah Zilla School Alumni Association

বিশ্বকাপ ফুটবল জ্বর - চতুর্থ কিস্তি - Howrah Zilla School Alumni Association

বিশ্বকাপ ফুটবল জ্বর - চতুর্থ কিস্তি

কিছু ফেরা সব ফেরায় না

03 July, 2018 Total Views: 880
Howrah Zilla School Alumni Association: Blog

একটা স্বপ্নভঙ্গের রাত, অনেকের জন্যই। অনেকের জন্যই বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেল শনিবার শেষ প্রহরে।

কিছু দশক আগে হলেও ফুটবলের সনাতনী ভাষ্যকারেরা দিন শুরুর আগেই বলতেন, আজ লাতিন আমেরিকার শিল্পসুষমার সঙ্গে ইউরোপিয়ান ক্ষিপ্রতার লড়াই দুটি ম্যাচে। কিন্তু আজকের ফুটবলে যেভাবে ঘরানা বিলুপ্তির পথে, এসব কথা কোনো অর্বাচীনই বলবেন না। অতএব খেলা দুটি হয়ে দাঁড়ালো দুই মহাতারকার উজ্জ্বলতর হয়ে উঠবার পটভূমি।

প্রথম ম্যাচের স্কোরলাইন যেভাবে সুতোর ওপর দিয়ে হাঁটলো, তাকে মাদারির খেলা বললে ভুল হবে না, আর ঈশ্বরবিলাসীরা দৈবনির্দিষ্ট বলবেন তাতে বিস্ময় কি! মাদারির খেলায় শিশুটি দড়ির ওপর দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে পার করে যায় দিগন্ত; পায়ের তলায়, দড়ির নীচে থালা, ঢোল, কাঁসি আর হর্ষোল্লাসের শব্দব্রহ্ম... আর্জেন্টাইন সেই স্বপ্নওলার কিন্তু দিগন্ত পার করা হলো না। পদস্খলন... এবং মহাকালের কৃষ্ণগহ্বরে মহাতারকার জন্য কোনো বিলাসী আয়োজন নেই, ব্যর্থতার কোনো রুপোলি রাংতায় মোড়া দ্বিতীয় সংজ্ঞা নেই, শুধু আছে দিনের শেষে মাঠ ছেড়ে চলে যাবার অমোঘ বজ্রনির্দেশ।

আর সেই চলে যাওয়া যখন হয় শেষ বারের মতো চলে যাওয়া, তখন অনুভূতির সবকটি গুপ্তরন্ধ্র এক নিমেষে জেগে ওঠে, সেই কালান্তক প্লাবনে ভেসে যায় বর্তমান- শুধু জেগে থাকে আগামীকালের নিঃসঙ্গ প্রাণহীন একটা দ্বীপের প্রহেলিকা।

সে সময়েই স্টেডিয়ামের এক প্রত্যন্ত বাকেট চেয়ার থেকে আশ্বাস বাণীর মতো ভেসে আসে, এ যাওয়া তো চিরন্তন নয়...আর্জেন্টিনা নাই বা হলো, মাঠে তো তুমি ফিরবেই, হয়তো বার্সেলোনা, হয়তো বা আরো অন্য কোনো জার্সিতে, এত শুধু পোশাক বদল...এ যাওয়া তো চিরন্তন নয়...

কিন্তু সব ফেরা যে একরকম হয় না। ফিরলেই তো অতীত ছোঁয়া যায় না। মহাতারকার উত্তর আসে, এই নীল-সাদায় যা ছেড়ে যাচ্ছি, যা অপ্রাপ্তি, যা বাকি থেকে যাওয়া দান, সেসব বাকিই থেকে যাবে...কারণ শতচেষ্টাতেও কিছু ফেরা সব ফিরিয়ে দিতে পারে না।

সেদিন টেস্ট পরীক্ষা শেষ। কয়েকমাস পরেই উচ্চ্যমাধ্যমিক। জানাই ছিল স্কুলজীবন শেষ, কিন্তু সেই শেষ প্রহর যখন শেষতম মুহূর্তে এসে পৌঁছয় তখনই তো...আবার সেই প্লাবন...আবার সেই শুঁড়িপথ বেয়ে তীব্র দুঃখের অনুপ্রবেশ...কোনো প্রতিরোধ ছাড়াই নতজানু হয়ে সমর্পণ সেই অনিবার্যতার কাছে, যে, আজই স্কুলের শেষ দিন। পুরোনো হলঘরের সামনের দালানটায় সবাই মিলে বসে, কথার স্বতঃস্ফূর্ততা প্রতি পদে পদে বাধা পাচ্ছে। সেই যুগের কথা হচ্ছে যখন ছবি বলতে ৩৬ ফিল্মের সংগ্রাম ছিল...সেই ক্যামেরাতেই কিছু ছবি উঠে গেল, আজও সেই ছবির কয়েকটা আশ্রয় হয়ে চারপাশে ঘুরে বেড়ায়। স্কুলের মাঠে তো তার পরেও ফেরা হয়েছে, অজস্রবার, হবেও... কিন্তু ওই যে, এই সাদা আর বোতল সবুজে যা ফেলে আসা হলো সেদিন, তাতে আর কোনোদিন ফেরা হলো না, হবে না...কারণটা সেই একই, শতচেষ্টাতেও কিছু ফেরা সব ফিরিয়ে দিতে পারে না।

বিশ্বকাপ চলছে, চলুক। জীবনের প্রতিটা অনুষঙ্গে কিভাবে যে স্কুল আর তার স্মৃতি শিরায় উপশিরায় জড়িয়ে আছে, সে কথাও এভাবেই, কিঞ্চিৎ অপ্রাসঙ্গিক ভাবেই, বারংবার মনে পড়ে যায়।

হাওড়া জিলা স্কুল...আমার দৈনন্দিনতায়, আমার চেতনায়।